বিনোদন, সেলিব্রিটি বার্তা

ভেঙে গেল অদিতি এবং অপূর্বের সাজানো সংসার!!

২০১০ সালের ১৯ আগস্ট অ’ভিনেত্রী সাদিয়া জাহান প্রভাকে বিয়ে করেছিলেন অ’পূর্ব। ২০১১ সালের ফেব্রুয়ারিতেই ডিভোর্স হয়ে যায় তাদের। ওই বছরের ১৪ জুলাই অপূর্ব পারিবারিকভাবে নাজিয়া হাসান অদিতিকে বিয়ে করেন। তাদের একমাত্র পুত্রসন্তানের নাম আয়াশ।

Ziaul Faruq Apurba (@ziaul_faruq) | Twitter

কিন্তু ভেঙে গেল অভিনেতা জিয়াউল ফারুক অপূর্ব ও নাজিয়া হাসান অদিতির সংসার। রোববার (১৭ মে) ফেসবুকের মাধ্যমে বিষয়টি সবাইকে জানিয়েছেন অদিতি। মূলত তিনি তার রেলেশনশিপ স্ট্যাটাসের মাধ্যমে ব্যাপারটা জানান দেন। এবং সেখানে “ডিভোর্সি” উল্লেখ করেন।

বিচ্ছেদের পর এক ফেসবুকে স্ট্যাটাসের মাধ্যমে অপূর্বের সুখী জীবন কামনা করেছেন তিনি। নাজিয়া হাসান অদিতির স্ট্যাটাসটি পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো:

মোহাম্মদ জিয়াউল ফারুক অপূর্ব
পূর্ব একজন অসাধারণ বাবা, স্নেহশীল ভাই, দায়িত্বশীল পুত্র এবং একজন ভালো মানুষ। নিজের অসাধারণ মেধা দিয়ে তিনি লক্ষ লক্ষ ভক্ত তৈরি করেছেন। তিনি যেখানে থাকার যোগ্য, ঠিক সেখানেই রয়েছেন। ব্যক্তিগত জীবন দিয়ে নয়, দয়া করে তার অসাধারণ কাজগুলো দিয়ে তাকে বিচার করুন।

দুর্ভাগ্যবশত আমরা এখন আর একসঙ্গে থাকছি না, এর অসংখ্য কারণ রয়েছে। তবে আমি তার জন্য সুখী ও সমৃদ্ধ জীবন কামনা করছি। তিনি আমাকে আমার ছেলে আয়াশ এবং পরিবারের সদস্যদের অনেক ভালোবাসা দিয়েছেন। এটা আমার কাছে তার থেকে পাওয়া সেরা উপহার।

0 Apurbo and his son share a common birthday Popular actor ...

দয়া করে এই সিদ্ধান্ত দিয়ে আমাদের বিচার করবেন না। আপনারা আমাদের সবসময় ভালোবেসেছেন এবং সমর্থন দিয়েছেন। আশা করছি আপনারা এই ধারা অব্যাহত রাখবেন। এছাড়া তাদের নিয়ে ভুয়া সংবাদ প্রকাশ না করার জন্যও অনুরোধ করেছেন অদিতি।

বিচ্ছেদের কারণ জানতে চাইলে দেশের একটি জাতীয় পত্রিকাকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে অদিতি বলেন, দুজনের চিন্তার জায়গায় মিল হচ্ছিল না ,বেশির ভাগ সময়ই মতের ভিন্নতা ঘটতো । এ ছাড়া আরও কিছু কারণ তো ছিলই। তবে সে আমার বাচ্চার বাবা। তাকে আমি ছোট করতে চাই না। কাউকে ছোট করে কেউ কখনো বড় হতে পারে না। তা ছাড়া আমি তো অপূর্বকে অস্বীকার করব না। সে আমার বাচ্চার বাবা। এই রশিটা সারা জীবন থেকেই যাবে। অপূর্ব নিজেও আমাকে সম্মান করে। আমাকে নিয়ে কোথাও তার মুখে বাজে মন্তব্য শুনিনি।

Apurba-Nazia splits after 9yrs of marriage

তিনি আরও বলেন, বিষয়টি নিয়ে আমি কাদা–ছোড়াছুড়ি করতে চাই না। তবে এতটুকু বলি, দুজনের মধ্যে মনোমালিন্য ছিল। মতবিরোধ ছিল। এ কারণেই বিচ্ছেদ হয়েছে।
স্বামী হিসেবে অপূর্ব কেমন ছিলেন জানতে চাইলে অদিতি বলেন, আমরা দুজন মারামারি, ঝগড়া যা–ই করি না কেন, সেগুলো আমাদের একান্তই ঘরের ব্যাপার। কিন্তু অপূর্ব বাংলাদেশের ছোট পর্দার প্রথম সারির জনপ্রিয় তারকা। বাংলাদেশের মানুষ তাকে যে পরিমাণ ভালোবাসে, সেটা ব্যক্তিগত কারণে কেড়ে নিতে পারি না। ভালো অভিনয় করাটা তার একটি গুণ। এত বড় গুণ তো অস্বীকার করা যাবে না। সবাই তো আর তারকা হতে পারে না। তবে সব মানুষেরই ভালো–মন্দ দিক থাকে। তবে সে অসম্ভব মেধাবী। মানুষ হিসেবেও দারুণ।Ayyash’s mother feels proud of her son

 

বর্তমানে করোনা ভয়াবহ অবস্থায়, তিনি তার ছেলের সাথে এই লকডাউনের মধ্যে একান্ত সময় কাটাচ্ছেন। ছেলে ঘিরেই তার জীবন এগিয়ে যাচ্ছে।

 

তারকালয়  ১৯/০৫/২০২০ই রিয়া

Previous ArticleNext Article