সেলিব্রিটি বার্তা

মিষ্টি কন্ঠের অধিকারী লিজার জীবনী

ক্লোজআপ ওয়ান তারকা সানিয়া সুলতানা লিজা। গানের সুরে সুরে মাতিয়ে চলেছেন তিনি।সানিয়া সুলতানা লিজার জন্ম ২২ ডিসেম্বর ১৯৯৩। গানের ভূবনে যাত্রা শুরু প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়াকালীন সময়ে এক শিক্ষিকার উৎসাহে। লিজা তখন পড়তেন গৌরীপুর পৌর মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। স্কুলের শিক্ষিকা রাবেয়া খানমের পরামর্শে বাবা তাকে ভর্তি করে দিলেন ‘গৌরীপুর সঙ্গীত নিকেতন’-এ। এখানে তিনি বছর তিনেক উচ্চাঙ্গ, পল্লী আর আধুনিক গান শিখেছিলেন। তারপর লিজা গান শিখেছেন ময়মনসিংহ শিল্পকলা একাডেমীর শিক্ষক আনোয়ার হোসেন আনুর কাছে। এই ওস্তাদজী তাকে শিখিয়েছেন ক্ল্যাসিক্যাল, আধুনিক গান। লিজার বাবারও স্বপ্ন ছিল লিজা সংগীত শিল্পী হোক। কিন্তু বাধা দেন লিজার মা। তিনি বরাবরই গানের চেয়ে পড়াশোনায় মনোযোগ দেওয়ার ব্যপারে লিজাকে উপদেশ দিতেন। তাই বলে লিজা থেমে থাকে নি। বাবার উৎসাহ ও শিক্ষিকার পরামর্শে লিজা ভর্তি হন গৌরীপুর সঙ্গীত নিকেতন – এ। সেই থেকে লিজার পথচলা শুরু। সেদিনের সেই লিজা ২০০৮ সালের ক্লোজআপ ওয়ান তোমাকেই খুঁজছে বাংলাদেশ প্রতিযোগিতায় প্রথম হন। তারপর আর থেমে থাকা নয় – ১টি একক অ্যালবামের পাশাপাশি ৫টি মিক্সড অ্যালবাম ও চলচ্চিত্রে প্লে-ব্যাকও করছেন সানিয়া সুলতানা লিজা।

মিডিয়াতে তিনি যাত্রা শুরু করেন নতুন কুঁড়িতে অংশগ্রহণের মাধ্যমে। লিজা ভালো ব্যাটমিন্টন খেলেন। ২০০৩ সালে জাতীয় পর্যায়ে মেয়েদের ব্যাটমিন্টন প্রতিযোগিতায় দ্বিতীয় হন লিজা। স্কুল জীবনে ষষ্ঠ থেকে একেবারে দশম শ্রেণী পর্যন্ত শীতকালীন খেলাধুলা প্রতিযোগিতায় একটানা পাঁচ বার ময়মনসিংহ জেলার চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করেছিলেন। ২০০৯ সালে ময়মনসিংহে জেলা ক্রীড়া সংস্থা আয়োজিত টুর্নামেন্টেও চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন।

দেশাত্ববোধক গান গেয়ে ৩ বার জাতীয় পুরস্কার পেয়েছেন। ২০০৩ সালে অনুষ্ঠিত সারা দেশে জাতীয় শিশু পুরস্কার প্রতিযোগিতায় প্রথম হয়েছিলেন। ২০০৬ সালে জাতীয় শিশু পুরস্কার প্রতিযোগিতায় দেশাত্মবোধক ও পল্লিগীতি—দুই ক্যাটাগরিতে স্বর্ণপদক পেয়েছিলেন। ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ আয়োজিত ইসলামিক গানে রৌপ্যপদক পেয়েছিলেন। ২০০৮ সালে গৌরীপুর পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি ও ২০১০ সালে শিক্ষা নগরী ময়মনসিংহের ঐতিহ্যবাহী শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম কলেজ থেকে এইচএসসি পাশ করেন।এসএসসি আর এইচএসসি পরীক্ষাতে তিনি পেয়েছেন জিপিএ-৫।

এছাড়া পঞ্চম ও অষ্টম শ্রেণীতেও বৃত্তি পেয়েছেন। পরবর্তীতে ঢাকার ডেফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি থেকে বিবিএ সম্পন্ন করেন। ২০০৮ সালে তুমুল জনপ্রিয় টেলিভিশন অনুষ্ঠান ক্লোজআপ ওয়ানের মুকুট জয় করেন। তাঁর প্রথম একক অ্যালবাম তৌসিফ ফিচারিং লিজা পার্ট-১ প্রকাশিত হয় ২০১২ সালে,দ্বিতীয় একক অ্যালবাম পাগলি সুরাইয়া প্রকাশিত হয় ২০১৫ সালে। প্লেব্যাকও করেছেন ৫০টিরও বেশি সিনেমাতে।গানের মিশ্র অ্যালবাম বেরিয়েছে ৫০টিরও বেশি।লন্ডনভিত্তিক বলিউডের গানের চ্যানেল বিফোরইউ মিউজিক-এ প্রথম বাংলাদেশি গায়িকা হিসেবে চ্যানেলটিতে প্রচার হয় লিজার মিউজিক ভিডিও ‘পাগলী সুরাইয়া’।

তৌসিফের কম্পোজিশনে এ মনের আঙ্গিনায়/তোরই তো ঠিকানা গানটি গেয়ে ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করেন তিনি। এ ছাড়া এই তো ভালোবাসা চলচ্চিত্রের জন্য গাওয়া লিজা ও তৌসিফ এর টাইটেল সঙ ‘‘এই তো ভালোবাসা’’ বর্তমান তরুণ প্রজন্মসহ সব শ্রেণীর শ্রোতা হৃদয় জয় করে নিয়েছে। ২০১৫ সালে প্রকাশিত পাগলি সুরাইয়া অ্যালবাম এর সুরাইয়া গানটি ব্যাপক শ্রোতাপ্রিয়তা লাভ করে। উপস্থাপনায়ও বেশ সুনাম রয়েছে তাঁর।

পারিবারিকভাবে আংটি বদল হয়েছে তার। স্বামী বাংলাদেশ টেলিভিশনের নিউজ প্রোডিউসার ইকবাল মাহমুদ বাবলু। কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বও পালন করেছেন তিনি।

 

Tarokaloy/02 March/Shaila

Previous ArticleNext Article