সাজগোজ

মেকআপের সময় কন্টাক্ট লেন্স এর সঠিক ব্যবহার জানেন তো!

আমাদের দেহের গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গগুলোর মধ্যে চোখ অন্যতম । বেশিরভাগ মানুষই মনের কথা চোখের ইশারায় বলে থাকে আর সেই চোখ যদি হয় সুন্দর তাহলে তো কোনো কথাই নেই। একজন মানুষের মায়াবী চোখের চাহনী দিয়েই কিন্তু অন্যদের মন সহজেই ঘায়েল করা সম্ভব । তাই এই চোখটিকে সাজাতে আমরা অনেকেই অনেক বেশিই আগ্রহ প্রকাশ করি। শুধু মেকআপেই শেষ নয়, মেকআপের পাশাপাশি অনেকেই দেখার মত লুক আনার জন্য কন্টাক্ট লেন্স ব্যবহার করে থাকেন । চোখের সমস্যার কারণেও কিন্তু অনেকে লেন্স ব্যবহার করে থাকে। তো আপনি যে কারণেই লেন্স ব্যবহার করেন না কেন, মেকআপের ক্ষেত্রে লেন্স পরলে একটু সাবধানতা অবলম্বণ করতে হবে । তা না হলে অতিমুল্যবান এই অঙ্গটি অনেক বড় ক্ষতির সম্মুক্ষিন হতে পারে । কয়েকটি ধাপে তুলে ধরা হলো-

১ম ধাপ, সবসময় মেকআপ শুরুর আগে প্রথমে মুখ এবং হাত ভালোভাবে ধুয়ে নিবেন । এরপর পরিষ্কার টাওয়াল দিয়ে হাত এবং মুখ ভালো করে ড্রাই করে নিবেন। এরপর কন্টাক্ট লেন্স ব্যবহার করবেন । মেকআপ করার পর পরলে কন্টাক্ট লেন্স নষ্ট হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। মেকআপের আগে কন্টাক্ট লেন্স পরলে মেকআপ দ্বারা লেন্স নষ্ট হওয়ার ঝুকি কম থাকে, এছাড়াও যে কোনো চোখের ইনফেকশন থেকেও এড়ানো যায় ।

২য় ধাপ, আপনার মেকআপে ব্যবহৃত ব্রাশ বা বিউটি স্পঞ্জটি যেন পরিষ্কার থাকে । মেকআপ ব্রাশে ময়লা থাকলে জীবাণুর সংক্রামণ হওয়া খুবই স্বাভাবিক । কন্টাক্ট লেন্স পরা অবস্থায় ময়লা মেকআপ ব্রাশ ব্যবহার করতে গেলে নানা রকমের ইনফেকশন হতে পারে । তাই অবশ্যই আপনার ব্রাশ বা বিউটি স্পঞ্জটি সবসময় পরিষ্কার করে নিবেন ।

৩য় ধাপ, কন্টাক্ট লেন্স পড়ে মেকআপ করার সময় কখনোই বেশি প্রেসার দিয়ে মেকআপ করা উচিত না।

৪র্থ ধাপ, মেকআপের প্রোডাক্টস অবশ্যই ভালো কোয়ালিটির হতে হবে যেন চোখের সমস্যা না হয় । ভালো কোয়ালিটি মানেই যে হাই ব্র্যান্ড, হাই প্রাইসে তা কিন্তু নয়। অনেক কম দামেও কিন্তু ভালো ব্র্যান্ডের প্রোডাক্ট পাওয়া যায় । সেখান থেকে বেছে নিন আপনার পছন্দ । অবশ্যই অয়েল ফ্রি প্রোডাক্টগুলো কিনতে চেষ্টা করবেন ।

৫ম ধাপ, কন্টাক্ট লেন্স পড়ে কখনই ওয়াটার লাইনে কাজল দিবেন না । ওয়াটার লাইনে কাজল ব্যবহার করতে গেলে, অবশ্যই চোখে একটা প্রেসার ক্রিয়েট হয় । আর এই কাজল কন্টাক্ট লেন্সের সাথে লেগে যাওয়ার সম্ভাবনা বেশি। তাই যতোটা সম্ভব ওয়াটার লাইনে কাজল ব্যবহার করা থেকে নিজেকে বিরত রাখতে হবে।

৬ষ্ঠ ধাপ, অনেক সময়েই আমরা সাধারণত আরও সুন্দর লুকের জন্য আইল্যাশ ব্যবহার করে থাকি। আইল্যাশের গ্লু কিন্তু চোখের লেন্সের জন্য খুবই খারাপ খেয়াল রাখতে হবে যেন আইল্যাশের গ্লু-টা ভালো কোয়ালিটির বা মানসম্পন্ন হয়।

৭ম ধাপ, চোখে কন্টাক্ট লেন্স ব্যবহার করে লুজ পাউডার গ্লিটার অথবা লুজ পিগমেন্টকে একদমই না বলুন। এতে আই ইরিটেশন হওয়ার অনেক চান্স থাকে । তাই কিছু অসাবধানতায় অনেক বড় ক্ষতি হতে পারে আপনার এই মুল্যবান সম্পদটির । তাই সব থেকে ভালোমানের ক্রিম আইশ্যাডো গুলো ব্যবহার করতে পারেন ।

৮ম ধাপ, আপনার ত্বকের মেকআপ তোলার পূর্বে অবশ্যই কন্টাক্ট লেন্স খুলে নিন । কারণ মেকআপ তোলার সময় ত্বকে অনেক বেশি প্রেসার পরে, যেটা চোখের এবং লেন্সের জন্যে বড় ক্ষতির কারন হতে পারে। এছাড়াও মেকআপ এবং অয়েলি প্রোডাক্টস গুলো আপনার লেন্সের সংস্পর্শে খুব সহজেই আসতে পারে । তাই সাবধান থাকুন !

ঌম ধাপ, চোখ থেকে লেন্স খুলে ফেলার পর দ্রুতই সেগুলো লেন্স সল্যুশন এর সাহায্যে ওয়াশ করে নিন এবং নতুন সল্যুশনে ডুবিয়ে রাখুন । কারণ আপনার লেন্সে বাহিরের ধুলো ময়লা ও মেকআপ লেগে থাকতে পারে । তাই লেন্সগুলোকে ভালো রাখতে চাইলে প্রতিবার সল্যুশন এর সাহায্যে ওয়াশ করে রাখতে হবে এতে করে আপনার লেন্স দীর্ঘস্থায়ী হবে ও ভালো থাকবে।

তারকালয়/১ সেপ্টেম্বর,২০১৮/রূপা

Previous ArticleNext Article